Logo

মৃত্যু বরণকারী সেনা সদস্যদেরকে সামরিক মর্যাদায় দাফন করা হয় (অসকস)

রিপোর্টার:
আপডেট : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০

ডেস্ক রিপোর্ট

আমাদের অনেক অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যই জানেন না যে সশস্ত্রবাহিনী’র অবসরপ্রাপ্ত সেনা-সদস্য (আত্মহত্যা ব্যতীত) মৃত্যু বরণ করলে তাদেরকে নিকটস্থ দায়িত্বপ্রাপ্ত সেনা ইউনিট হতে একটি চৌকষ দল কর্তৃক “গার্ড অব অনার” প্রদানের মাধ্যমে সামরিক মর্যাদায় সেনা-সদস্যদের লাশ দাফন করা হয়।

এ ব্যাপারে আমাদেরকে নিম্ন বর্ণিত কাজ গুলি করতে হবেঃ 👇👇

১। 👉কোন সেনা-সদস্য মৃত্যু বরণ করলে যতদ্রুত সম্ভব নিকটস্থ জেলা সশস্ত্রবাহিনী বোর্ড/ স্টেশন সদর দপ্তর/ এরিয়া সদর দপ্তরকে অবগত করাতে হবে।

২। 👉জেলা সশস্ত্রবাহিনী বোর্ড/স্টেশন সদর দপ্তর/ এরিয়া সদর দপ্তরকে মৃত্যু সেনা সদস্যের পূর্ণ নাম নম্বরসহ মৃত্যুর কারণ, এবং তার চাকুরী অবসানের প্রত্যায়ন পত্র (লাল বই)- এ লিপিবদ্ধ বিস্তারিত তথ্যসমূহ কর্তপক্ষকে জানাতে হবে।

৩।👉 মৃত্যু সেনা সদস্যের বাড়ী হতে সংশ্লিষ্ট সেনানিবাসের দূরত্ব কর্তৃপক্ষকে অবগত করাতে হবে।

৪। 👉সংশ্লিষ্ট সেনানিবাস হতে মৃত্যু সেনাসদস্যের বাড়িতে পৌঁছাতে কত সময় লাগতে পারে, সেটা বলে দিতে হবে।

৫। 👉দূরত্ব এবং সময় যানবাহনের গতির উপর নির্ভর করে সময় বলে দিতে হবে। অর্থাৎ ৩টন লরি এবং পিকআপের গতি ভিন্ন ভিন্ন হয়, সেটা খেয়াল রেখে সময় দিতে হবে।

৬। 👉সংশ্লিষ্ট জেলা সশস্ত্রবাহিনী বোর্ড/ স্টেশন সদর দপ্তর/ দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউনিট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে লাশ দাফনের সময় নির্ধারণ করতে হবে। যাতে তার সময় মত পৌঁছে লাশ দাফন করতে পারেন।

৭। 👉মৃত সেনা সদস্যের জানাযা /অন্তষ্টিক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট উপজেলার সর্বস্তরের আবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যগণের অংশগ্রহণ জরুরী।

৮। 👉অনেক ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, লাশ দাফনের যে সময় নির্ধারাণ করে দেয়া হয়, সেনানিবাস থেকে গার্ড অব অর্নার প্রদানকারী দলটি সঠিক সময়ে আসতে পারেন না। ফলে সিভিল সমাজে এর বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। এতে সশস্ত্রবাহিনীর ভাবমূর্তী ক্ষুন্ন হচ্ছে। এবং অনেক বিতর্কের সৃষ্টি হচ্ছে।

৯। 👉অনাকাংখিত ও অনভিপ্রেত পরিস্থিতি এড়াতে খবর প্রদানকারীকে একটু কৌশলী হতে হবে। অর্থাৎ নির্ধারিত সময়ের চাইতে কমপক্ষে ২/৩ ঘন্টা সময় নিজের হাতে রেখে সংশ্লিষ্ট ইউনিটকে সময় বেঁধে দিতে হবে। যাতে লাশ দাফনের নির্দিষ্ট সময়ের কমপক্ষে ১ ঘণ্টা পূর্বে সংশ্লিষ্ট সেনা দলটি গন্তব্যস্থলে এসে পৌঁছাতে পারে।

১০।👉 যথাসময়ে নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছাতে যতটুকু সময়ের প্রয়োজন, তা থেকে কমপক্ষে ২/৩ ঘণ্টা সময় হাতে রেখে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউনিট সেনানিবাস হতে রওয়ানা দিলে ভাল হয়। যাতে পথে ঘাটে যানবাহনের ত্রুটি হলে সেটা সেরেও নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছানো যায়। এই বিষয়টিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সদয় ও মানবিক দৃষ্টি আকর্ষণ করা হল।

🌈অবসরপ্রাপ্ত সেনা-সদস্যদের এই ব্যাপারে কারো কোন সহযোগিতার প্রয়োজন হলে অসকস এর কেন্দ্রীয় অফিসে যোগাযোগ করার জন্য বিনীত ভাবে অনুরোধ রইল।
প্রচারে অসকস, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন (অবঃ) চট্টগ্রাম জেলা কমিটি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর দেখুন